সোমবার, ১৯ এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
জাতীয়, প্রচ্ছদ ‘নিরাপদ সমুদ্রাঞ্চল গড়ে তোলাই লক্ষ্য’

‘নিরাপদ সমুদ্রাঞ্চল গড়ে তোলাই লক্ষ্য’


পোস্ট করেছেন: নিউজ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: অক্টোবর ২৪, ২০১৮ , ১২:৫৯ অপরাহ্ণ | বিভাগ: জাতীয়,প্রচ্ছদ


বাংলাদেশ একটি নিরাপদ সমুদ্র অঞ্চল গড়ে তুলতে বদ্ধ পরিকর বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার রাজধানীর হোটেল রেডিসনে এশিয়ান অঞ্চলের দেশসমূহের কোস্টগার্ড প্রধানদের সঙ্গে উচ্চ পর্যায়ের সম্মেলনের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। সম্মেলনে মোট ২২টি সদস্য রাষ্ট্রের কোস্ট গার্ড প্রধানরা এই সম্মেলনে অংশ নিয়েছেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড একটি অপেক্ষাকৃত নতুন বাহিনী হলেও সেটি দেশের বিশাল সমুদ্রসীমার সুরক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। এর মাধ্যমে দেশের মানুষের আস্থা অর্জনেও এ বাহিনীর কাজ করছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ অঞ্চলের মানুষের জীবন যাপন অনেকটা সমুদ্র নির্ভর। এ কারণে সমুদ্রের নিরাপত্তা বিধান করা আমাদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তিনি বলেন, এ অঞ্চলের মানুষের জীবন-জীবীকার একটি বড় অংশই সমুদ্র সম্পদের ওপর নির্ভরশীল। তাই এশিয়ান অঞ্চলের বিশাল সমুদ্র ভাণ্ডার থেকে সুবিধা পেতে আন্ত:দেশীয় সহযোগিতাকে আরো বাড়াতে হবে।

ঢাকার রেডিসন ব্লু ওয়াটার গার্ডেনে ৫ দিনব্যাপী হেডস অব এশিয়ান কোস্টগার্ড এজেন্সিস মিটিংয়ের (এইচএসিজিএএম) তত্ত্বাবধানে রয়েছে বাংলাদেশ কোস্টগার্ড। বাংলাদেশসহ মোট ২২টি দেশ ও আন্তর্জাতিক সংস্থার শতাধিক প্রতিনিধি ৫ দিনব্যাপী এ সভায় অংশগ্রহণ করবেন।

সভায় অনুষ্ঠিতব্য হাই লেভেল মিটিংয়ে অস্ট্রেলিয়া, ব্রুনাই, কম্বোডিয়া, চীন, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, জাপান, লাওস, তুরস্ক, মালয়েশিয়া, মালদ্বীপ, মিয়ানমার, পাকিস্তান, ফিলিপিন্স, দক্ষিণ কোরিয়া, সিঙ্গাপুর, শ্রীলঙ্কা, থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম, বাহরাইনসহ রি-ক্যাপ’র শতাধিক প্রতিনিধি অংশগ্রহণ করবেন। সদস্য দেশসমূহের সমুদ্র ও উপকূলবর্তী অঞ্চলে উদ্ধার তৎপরতা, পরিবেশ দূষণ রোধ-প্রতিরোধ, অবৈধ কর্মকাণ্ড প্রতিরোধ এবং কোস্টগার্ড বাহিনীর সক্ষমতা বৃদ্ধির বিষয়ে হাই লেভেল মিটিং এ বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।

সদস্য দেশসমূহের সমুদ্র ও উপকূলবর্তী অঞ্চলে উদ্ধার তৎপরতা, পরিবেশ দূষণ রোধ-প্রতিরোধ, অবৈধ কর্মকাণ্ড প্রতিরোধ এবং কোস্ট গার্ড বাহিনীর সক্ষমতা বৃদ্ধির বিষয়ে হাই লেভেল মিটিং এ বিস্তারিত আলোচনা করা হবে। সভায় উপরোল্লিখিত বিষয়সমূহে আশানুরূপ ফল লাভের পাশাপাশি পারস্পরিক সম্পর্ক উন্নয়ন, সমঝোতা বৃদ্ধি, তথ্য আদান-প্রদান সংক্রান্ত সম্মতি প্রচেষ্টা ও পারস্পরিক সহযোগিতা বৃদ্ধি পাবে বলে আশা করছে কোস্ট গার্ড।

Comments

comments

Close