শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
খুলনা বিভাগ, প্রচ্ছদ, প্রশাসন যশোরের শার্শা থানা ও বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশের গুজবে কান না দেওয়ার পৃথক আহবান

যশোরের শার্শা থানা ও বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশের গুজবে কান না দেওয়ার পৃথক আহবান


পোস্ট করেছেন: বার্তা বিভাগ ২ | প্রকাশিত হয়েছে: জুলাই ২৩, ২০১৯ , ৪:৩৬ অপরাহ্ণ | বিভাগ: খুলনা বিভাগ,প্রচ্ছদ,প্রশাসন


খোরশেদ আলম :

পদ্মা সেতুতে শিশুর কাটা মাথা ও রক্ত লাগবে, এমন ইস্যুকে কেন্দ্র করে দেশের বিভিন্ন স্থানে ছেলেধরা সন্দেহে। গণপিটুনির মাধ্যমে একটি কুচক্রী মহল, দেশে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টির পাঁয়তারা করছে।

এমন অস্থিতিশীল পরিবেশের কারণে,
যশোরের শার্শা উপজেলায় সহ বিভিন্ন এলাকায় যাতে এ ধরনের পরিস্থিতি সৃষ্টি না হয়। সে লক্ষে যশোর জেলা পুলিশের নির্দেশে, শার্শা থানা ও বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশের পক্ষ হতে, বিভিন্ন প্রচারণামূলক পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।

এ উপলক্ষে উপজেলার বেনাপোল সহ এলাকার বিভিন্ন স্কুল-কলেজে, সচেতনতামূলক আলোচনা সভা করা হয়েছে এবং এলাকায় মাইকিং করা হচ্ছে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোয় পৃথক পৃথক আলোচনা সভায় আহবান বক্তব্য রাখেন, নাভারন পুলিশ সার্কেল এএসপি জুয়েল ইমরান সহ শার্শা থানার পক্ষ থেকে এস আই বাবুল আক্তার। এছাড়া এদিকে বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি আবু সালেহ শেখ মাসুদ করিম ও থানা পুলিশের অন্যান্য এসআই সহ পুলিশ সদস্যরা।

আলোচনা আহবানে সচেতন বক্তব্যে বলা হয়, সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে টহল ও গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধি করা হয়েছে। স্কুল-কলেজ ছুটির পর শিক্ষার্থীদের অভিভাবকের মাধ্যমে। প্রতিষ্ঠান ত্যাগের বিষয়টি শিক্ষক ও সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে, কর্মকর্তা ও কর্মচারী কর্তৃক নিশ্চিত করণের জন্য, নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। আপনার কেউ গুজবে কান দিবেন না। তাছাড়া উপজেলা থানা পুলিশে পক্ষ থেকে, সকল পুলিশ ফাড়িকে সচেতন বক্তব্যে দেওয়ার, নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

এছাড়াও বাংলাদেশ পুলিশের এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, জনগণ যাতে ছেলেধরা গুজবে কান না দেয়, সে জন্য সচেতনতামূলক প্রচারণা চালাতে। সকল জেলার সকল থানার অফিসার ইনচার্জকে নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।

এছাড়া মসজিদের ইমাম, এলাকার জনপ্রতিনিধি, স্থানীয় প্রশাসন, সুধী সমাজ, কমিউনিটি পুলিশিংয়ের প্রতিনিধিদের প্রচারণা চালানোর জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। কেননা, গণপিটুনি দিয়ে হত্যা এবং গুজব ছড়িয়ে দেশে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করা একটি ফৌজদারী অপরাধ।

প্রত্যেক এলাকায় কোনো অপরিচিত ব্যক্তির চলাফেরায় সন্দেহের সৃষ্টি হলে তাকে চ্যালেঞ্জ করার জন্য স্থানীয় থানা পুলিশের সহায়তা অথবা জাতীয় জরুরী সেবা ৯৯৯-এ কল করে জানানোর জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো।

Comments

comments

Close