শুক্রবার, ৭ মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
জাতীয়, বিভাগীয় সংবাদ, রাজনীতি, সাক্ষাৎকার ঈদে শ্রমিকদের জন্য শুভেচ্ছা জানান গাজীপুর মহানগর জাতীয় শ্রমিকলীগের ১নং যুগ্ন-আহবায়ক কবির মন্ডল

ঈদে শ্রমিকদের জন্য শুভেচ্ছা জানান গাজীপুর মহানগর জাতীয় শ্রমিকলীগের ১নং যুগ্ন-আহবায়ক কবির মন্ডল


পোস্ট করেছেন: বার্তা বিভাগ ৪ | প্রকাশিত হয়েছে: আগস্ট ৬, ২০১৯ , ১:৩৫ পূর্বাহ্ণ | বিভাগ: জাতীয়,বিভাগীয় সংবাদ,রাজনীতি,সাক্ষাৎকার


গাজীপুর প্রতিনিধিঃ

লেখাপড়ার পাশাপাশি ছাত্ররাজনীতিতে যিনি জড়িয়ে পড়েন অল্প সময়ের মধ্যে। মাধ্যমিক শিক্ষা শেষ করেন গাজীপুর চান্দনা স্কুল এন্ড কলেজে,উচ্চ মাধ্যমিকে ভর্তি হন ভাওয়াল বদরে আলম সরকারী বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে ।সেখানে জড়িয়ে পড়েন মুজিব আদর্শে গড়া ছাত্রলীগের পতাকাতলে ।

ছাত্র রাজনীনিতির পাশাপাশি শ্রমিকদেরকে নিয়ে তিনি সব সময় ভাবতেন, কথা বলতেন-শ্বৈরাচার সরকার পতনের আন্দোলনে ছাত্রদেরকে নিয়ে সরকার পতনের ডাক দিয়েছিলেন তিনি। তারপর আস্তে আস্তে জাতীয় শ্রমিকলীগের রাজনীনিতিতে পরোক্ষভাবে জড়িয়ে পড়েন, শ্রমিকদের ন্যায্য অধিকারের জন্য কথা বলতেন, মাঠে ময়দানে শ্রমিকদেরকে নিয়ে তাদের অধিকার আদায়ে সংগ্রাম করতেন।

তাই গাজীপুর জেলা আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দের কাছে তার রাজনীতির গ্রহন যোগ্যতা দিন দিন ভারতে থাকে। সেই সুবাধে সাবেক বাসন ইউনিয়ন জাতীয় শ্রমিকলীগের সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত হন। তারপর থেকে সারাক্ষন শ্রমিকদেরকে নিয়ে ভাবতেন, গামেন্টস শ্রমিকদের বেতন বোনাস নিয়ে মালিক পক্ষের সাথে সমঝোতা করে তা সমধান করার আপ্রান চেষ্টা করতেন। সক্রিয় ভাবে জেলা আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে বিএনপি- জামাত শিবিরের অত্যাচার নির্যাতনের শিকার হয়েছিলেন বার বার। একের পর এক আন্দোলন সংগ্রামের পর অবশেষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকার ক্ষমতায় আসে। তখন বিএনপি জামাত সরকার বিরোধী আন্দোলন করতে থাকে গাজীপুর চান্দনা চৌরাস্তার আশ পাশের এলাকায় ।

সেই আন্দোলন সংগ্রামের সক্রিয় ভাবে হাজার হাজার শ্রমিকদেরকে নিয়ে মাঠে ময়দানে সারাক্ষন থাকতেন, তখন তার সাথে মাঠে ময়দানে তাকে অনুপ্রেরনা দিতেন জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ। শ্রমিকদের অধিকার আদায়ে তিনি বাংলাদেশ সরকারের অনুমতি নিয়ে গঠন করেন বটম্স গ্যালারী প্রাঃলিঃ শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়ন। সেখানে তিনি সভাপতি হিসেবে মনোনীত হন। তখন ঐ প্রতিষ্ঠানের শ্রমিকদের দূঃখ সুখ সমানভাবে ভাগাভাগি করে তাদের অধিকার আদায় করার জন্য মালিক পক্ষের সাথে তার দফায় দফায় মিটিং বৈঠক লেগে থাকত। এই শ্রমিক ইউনিয়নে যারা সংযুক্ত ছিল বা যারা ছিল না তাদের প্রত্যেকের জন্য তার দ্বার সব সময় উম্মক্ত থাকত। সেখান থেকে শ্রমিদের বিভিন্ন সময় চিকিৎসা সেবা দিয়ে আসতেন। তাদের পরিবারের ও খোজ খবর তিনি নিতেন।

এরপর গাজীপুর সিটি করর্পোরেশন গঠিত হল, মহানগর জাতীয় শ্রমিকলীগ এর সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক মনোনিত হওয়ার জন্য অনেক নেতারা দৌড়ঝাপ শুরু করেন, অবশেষে তিনি গাজীপুর মহানগর জাতীয় শ্রমিকলীগের সাধারন সম্পাদক মনোনীত হন। কেন্দ্র থেকে যে সকল কর্মসুচি আসতো তা তিনি পালন করতেন সব সময়, শেখ হাসিনা সরকার এর সাফল্য একের পর এক দিন দিন বেড়ে চলেছে, প্রত্যেক সাফল্যের সাথে সাথে তিনি দলের পক্ষ থেকে বিভিন্ন সময় সাফল্যের কর্মসুচি পালন করতেন।

পরবর্তী সময়ে গাজীপুর মহানগর জাতীয় শ্রমিকলীগের কমিটি আরও গতিশীল করার জন্য কেন্দ্র থেকে সভাপতিকে আহবায়ক ও সাধারন সম্পাদকে ১নং যুগ্ন আহবায়ক মনোনীত করা হয়। একান্ত আলাপ কালে গাজীপুর মহানগর জাতীয় শ্রকিলীগের সাধারন সম্পাদক ও পরবর্তীকালে ১নং যুগ্ন আহবায়ক কবির আহম্মেদ মন্ডল বলেন-কখন ও পদ পদবীর জন্য নেতাদের কাছে ধরনা দেই নাই আর কখন ও দিব না, তবে কেন্দ্রয়ী নেতারা যেখানে যেই অবস্থায় রাখবেন সেইখানে ভালো থাকব।

এই ঈদে ঘর মুখো শ্রমিকদের উদ্যেশে – তারা যেন গন্তব্য স্থানে পৌছে তাদের পরিবারের সাথে ঈদের আনন্দ ভাগভাগি করে নেয়। সবাইকে ঈদ মোবারক ও আন্তরিক শুভেচ্ছা।

Comments

comments

Close