মঙ্গলবার, ২০ এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
প্রচ্ছদ, ফিচার ”শুদ্ধি অভিযান”কে স্বাগত

”শুদ্ধি অভিযান”কে স্বাগত


পোস্ট করেছেন: বার্তা বিভাগ | প্রকাশিত হয়েছে: অক্টোবর ২, ২০১৯ , ১১:৫৬ পূর্বাহ্ণ | বিভাগ: প্রচ্ছদ,ফিচার


আকতারুজ্জামান মোহাম্মদ মোহসীন
—————————————–
 
একটি দল কিংবা একটি পরিবার সংশোধন হতে চাইলে বা করতে চাইলে তাতে সমালোচনা না করে সাধুবাদ জানানো উচিত । কারণ একটি দল কিংবা একটি পরিবার সংশোধন হওয়া মানে দেশের কিছু অংশ সংশোধন হওয়া । যেখানে আমাদের দেশের প্রতিটি মানুষের রক্তে দুর্নীতি মিশে আছে । যারা অনেক কষ্টে এমন দুর্নীতি থেকে বেঁচে থাকতে চাই কিংবা দুর্নীতি মুক্ত করতে চাই তাঁদের অনেক অনেক ধন্যবাদ । আজকের দুর্নীতির দিকে তাকালে আমরা দেখতে পাই, আমাদের রিক্সা ড্রাইভার জোর করে কিছু ভাড়া বেশি নিতে চায়, ওয়েটার কিছু বখশিস চায়, গাড়ির হেলফার কিছু লোক বেশি নিয়ে বাড়তি আয় করতে চায়, দারোয়ান গাড়ির দরজা খুলে কিছু সম্মানী চায় । সরকারী অফিস পাড়ার কথা বলার কোন প্রয়োজন নেই, কারণ সেটা মাঝে মাঝে আলোচনায় আসে । আমাদের পিয়ন, বিলিংম্যান, লাইনম্যান, রিডিং চেকার, টেকনিশিয়ানদের অনেকের অনেক বড় বড় বাড়ি কিংবা মার্কেটের ইতিহাস আমাদের জানা আছে ।
 
সেই দেশে যদি কোন কালে ভদ্রে বেগম খালেদা জিয়ার মত প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী সংশোধনের আশায় র্যা ব গঠন করে থাকেন, শেখ হাসিনার মত প্রধানমন্ত্রী যদি শুদ্ধি অভিযান শুরু করে থাকেন, তবে তাকে নিশ্চয় সমালোচনা না করে সাধুবাদ জানানো উচিত । আমার বিশ্বাস এমন অভিযানে সুবিধা ভোগী কিছু মানুষ ছাড়া আমাদের মত ভুক্তভোগী মানুষের নিশ্চয় অনেক খুশি । কারণ আর কিছু না হোক এটা দীর্ঘ মেয়াদী না হলেও সাময়িক হলেও আমাদের কিছু সুবিধা পাওয়ার আছে । আর এমন যদি খালেদা জিয়া র্যা ব গঠনের সময় চিরস্থায়ী করতে পারতেন যে অপরাধ করলেই কারও মুক্তি থাকবে না, তাহলে হয়ত দেশে এমন অপরাধ বিস্তার করতে পারতো না । একই ভাবে আজকের শেখ হাসিনা যদি সবাইকে এমন ভাবে তৈরি করে চিরস্থায়ী করতে পারেন যে, অপরাধ করলে কখনও তার স্থান দলে হবে না, তাহলে এটার সুখ আমরা চিরকাল ভোগ করতে পারব ।
 
যারা দুর্নীতি করেন তারা উম্মাদের মত দুর্নীতি করেন না । তারা দুর্নীতি করেন এলাকার বড় ভাই, রাজনৈতিক নেতা, স্থানীয় এবং উপরস্থ আমলা, আইন প্রয়োগকারী সংস্থা সবাইকে ম্যানেজ করে । তাহলে তাকে সামাল দেবেন কে ? এলাকার মানুষও বিত্তবানদের বেশি পছন্দ করেন । ফলে দুর্নীতি আর অন্যায় পথে যারা বিত্তবান হয়েছেন তাঁদের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে, মসজিদ মন্দির গির্জা প্যাগোডা নির্মাণে, স্কুল কলেজের অনুষ্ঠানে নিমন্ত্রণ করে, সভাপতি করে, মর্যাদা দিয়ে অনেক উপরে তুলে নিয়ে যান । স্বভাবগত ভাবেই তারা সমাজে দুর্দমনীয় হয়ে উঠেন । অনেক সময় তাঁদের অন্যায় আর দুর্নীতির পথে করা আয় থেকে প্রতিবন্ধকতা হতে পারে এমন সবাইকে ভাগ দিয়ে আসেন । ফলে তারা থাকেন আইন, প্রশাসন, রাজনীতি সবার উপরে । কেউ লোভী হয়ে এদের ধীরে ধীরে বেড়ে উঠতে দেয়, কেউ না কেউ এদের লাগাম টানতে না পারলে তবে সমাজ বাঁচবে কি করে ?
 
দুর্নীতি কারনে দুর্নীতির জম্ম হয় । একজনের দুর্নীতি আরেক জনকে দুরনীতিতে উদ্বুদ্ধ করে । বিশ্বাস না হয় কোন গবেষক দিয়ে পরীক্ষা করে দেখতে পারেন । এক থেকে দুই, দুই থেকে চার, চার থেকে আট এমনি করে বাড়তে বাড়তে এখন সারা দেশটা দুর্নীতির আখড়াতে পরিণত হয়েছে । যার সামাল দেয়ার জন্য সরকার প্রধানের সদিচ্ছা ছাড়া কিছুতেই সম্ভব নয় । আমরা সারা দিন যদি কেবল চিৎকার করে বেড়ায় যে দেশে দুর্নীতি বেড়েছে, দুর্নীতি মানুষের নাভিশ্বাস তুলছে তাতে কোন কাজ হবে না । কারণ সে জানে সে সরকারের আমলা, কর্তা, কর্মচারী, নেতা, কর্মী তাহলে তার লাগাম টানার কোন সম্ভাবনা নেই । তাঁদের লাগাম টানতে পারেন এক মাত্র সরকার । যা এখন করা হচ্ছে বলেই মনে করছি ।
 
তাহলে এমন অভিযানে সরকারের সমালোচনা না করে তাকে সাধুবাদ জানাই । তাহলে সরকার তার পাখার নিচের মানুষগুলোকে সামলাতে সাহস পাবে এ জন্য যে আমরা সবাই সরকারের পক্ষে আছি । সরকার শক্তি পাবেন তার এমন দুরনীতিবাজ আমলা, নেতা, কর্মীদের ছাটাই করতে, বরখাস্ত করতে, শাস্তি দিতে । কারণ এরা গেলেও সরকারের নেতা কর্মীর অভাব হবে না, সরকারের শক্তির কোন ঘাটতি হবে না । সমাজ থেকে নির্মূল হোক দুর্নীতি, অনিয়ম, ঘুষ, চাদাবাজি, দখলদারিত্ব, মাদক ব্যবসা, ইত্যাদি । চিরস্থায়ী না হলেও সমাজ এদের ঘৃণা করতে, বর্জন করতে শিখুক । এদের লাগামহীন আচরণে লাগাম আসুক, এদের বুঝতে দিন এদের ছাউনী দেয়া ছাতাগুলো কি করে নিজেরাই ছাতা হারায় । তাই আসুন সরকারের এমন “শুদ্ধি অভিযান”কে স্বাগত জানাই, অভিনন্দন জানাই সরকারকে ।
# আকতারুজ্জামান মোহাম্মদ মোহসীন, সাহিত্যিক ও সমসাময়িক বিষয় লেখক

Comments

comments

Close