মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
রংপুর বিভাগ সুন্দরগঞ্জে রাস্তার ধারে ‘বাসক’ চাষ, লাভবান কৃষক

সুন্দরগঞ্জে রাস্তার ধারে ‘বাসক’ চাষ, লাভবান কৃষক


পোস্ট করেছেন: রংপুর বিভাগীয় ব্যুরো চিফ , | প্রকাশিত হয়েছে: নভেম্বর ১৪, ২০১৯ , ১১:২১ অপরাহ্ণ | বিভাগ: রংপুর বিভাগ


ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধা প্রতিনিধি : গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার চন্ডিপুর ইউনিয়ন পরিষদের বিভিন্ন রাস্তার ধারে ঔষধি গাছ ‘বাসক’ চাষ কৃষকদের মাঝে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে। এই ‘বাসক’ পাতা উৎপাদন করে অনেকটাই লাভবান হচ্ছেন তারা।

জানা গেছে, উপজেলার চন্ডিপুর ইউনিয়ন কৃষি উৎপাদনকারি সমবায় সমিতি লিমিটেডের সদস্যরা গত ২০১৬ সালে এই বাসক চাষের উদ্যোগ নেয়। এরপর উপজেলা কৃষি বিভাগের সহযোগিতায় চন্ডিপুর ইউনিয়ন পরিষদের নিকট প্রায় ৬০ কিলোমিটার রাস্তার ধারের জমি লিজ নেওয়া হয়। বিনিময়বিহীন ১৫ বছর মেয়াদে এই চুক্তি সম্পাদন করেন সদস্যরা। এছাড়াও উৎপাদনকৃত বাসক পাতা বাজারজাত করার জন্য চুক্তি করা হয়, দেশের স্বনামধন্য ওষুধ প্রস্তুতকারি প্রতিষ্ঠান ‘একমি’ কোম্পানির সঙ্গে। সেই থেকে ঔষুধিবৃক্ষ বাসক চাষ শুরু করেন সমিতির সদস্যারা।

এই চাষ সম্পর্কে সমিতির সদস্যরা জানান, বছরের যেকোনো সময়ে বাসক চারা রোপন করা যায়। চারা রোপনের ৩ মাস পর বাসক পাতা উৎপাদন করা সম্ভব। হালকা হলুদ রঙয়ের ডালপালাযুক্ত ১ থেকে ৩ মি. উঁচু গাছ, ঋতুভেদে সবসময়ই প্রায় সবুজ থাকে। পাতাগুলো পরিপক্ক হলে গাছ থেকে ছিঁড়তে হয়। পরিচ্ছন্নভাবে রোদে শুকিয়ে তা বিক্রি করছেন একমি ঔষুধ কোম্পানির কাছে। এতে তারা অর্থনৈতিক সুবিধা লাভ করছেন। ফলে বাসক পাতা যেমন আনতে পারে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি,তেমনি বিজ্ঞানসম্মত প্রক্রিয়ার মাধ্যমে এই পাতা দেশের ওষুধ শিল্পে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পারে।

এদিকে ওই সমতির সদস্যদের বাসক চাষকে অনুকরণ করে সুন্দরগঞ্জ উপজেলার শ্রীপুরসহ বেশকিছু এলাকায় বানিজ্যিকভাবে বাসক চাষে ঝুঁকে পড়েছে কৃষকরা।

চন্ডিপুর ইউনিয়ন কৃষি উৎপাদনকারি সমবায় সমিতি লিমিটেডের ক্যাশিয়ার আঙ্গুর মিয়া বলেন, বাসক চাষে খরচ হয় অনেক কম। হালকা পরিচার্যা ও বালাইনাশক ঔষধ প্রয়োগ করেই বাসক উৎপাদন করা যায়। ৬০ কিলোমিটার রাস্তার ধারে লাগানো বাসক গাছে বছরে প্রায় খরচ হয় ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা। যা থেকে লক্ষাধিক টাকা আয় করা সম্ভব হয়ে থাকে।

একমি কোম্পানির প্রতিনিধি হাসুবুল হাসান বলেন, সমিতির সদস্যদের উৎপাদন করা বাসক পাতাগুলো প্রতিমাসে একবার সংগ্রহ করা হয়। বাসকের পাতায় শ্বাসনালীর লালাগ্রন্থিকে সক্রিয় করে বলে বাসক শ্লেষ্মানাশক হিসেবে প্রসিদ্ধ । বাসক পাতার নির্যাস, রস বা সিরাপ শ্লেষ্মা তরল করে নির্গমে সুবিধা করে দেয় বলে সর্দি, কাশি এবং শ্বাসনালীর প্রদাহমূলক ব্যাধিতে বিশেষ উপকারী।

সুন্দরগঞ্জ উপজেলা কৃষি অফিসার রেজা-ই-মাহমুদ জানান, বাসক চাষ অত্যান্ত লাভজনক ফসল। উপজেলার কৃষকের লাগানো বাসক ক্ষেতগুলো নিয়মিত তদারিকি করা হচ্ছে। যাতে করে কৃষকরা অধিক লাভ করতে পারে,সে বিষয়ে সার্বিক সহযোগিতা দেওয়া হচ্ছে।

Comments

comments

Close