শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
প্রচ্ছদ, ফিচার এই শীতে ঘুরে আসুন স্বর্ণ দ্বীপ সন্দ্বীপ থেকে

এই শীতে ঘুরে আসুন স্বর্ণ দ্বীপ সন্দ্বীপ থেকে


পোস্ট করেছেন: বার্তা বিভাগ | প্রকাশিত হয়েছে: ডিসেম্বর ৩১, ২০১৯ , ৫:৩১ অপরাহ্ণ | বিভাগ: প্রচ্ছদ,ফিচার


 

শীতকালে শীত উপভোগের অন্যতম একটি জায়গা মূল ভূখন্ড থেকে বিছিন্ন সন্দ্বীপ । হাড়কাঁপানো শীতের সকালে সবুজে মোড়ানো কুয়াশাচ্ছন্ন ধানের শীষে মৃদু বাতাস ধোল খেয়ে যায়। শীতকালীন হরেক রকমের বাহারী পিঠার স্বাদ উপভোগ করতে সন্দ্বীপ বিকল্প নেই। সন্দ্বীপের ঐতিহ্যবাহী রসের পায়েস দিয়ে সকালের নাস্তা হলে আর কথায় নেই। বিস্তারিত জানাচ্ছেন সাইফ রাব্বী

সাগর বেষ্টিত এই সবুজে ঘেরা জনপদে রয়েছে বেশকিছু ঘুরে বেড়ানোর জায়গা। সন্দ্বীপের পশ্চিম দড়িয়া – সন্দ্বীপের মূল সদর সন্দ্বীপ টাউন থেকে সি এন জি, মোটরসাইকেল অথবা বেটারী চালিত রিকশা যোগে পশ্চিম দড়িয়াতে যাওয়া যায়। রিজার্ভ সি এন জি, অটোরিকশা বা মোটরসাইকেল নিয়ে দ্বীপের পশ্চিম প্রান্তে গেলে দেখা যাবে মনভরানো দৃশ্য। নব্য জাগ্রত চরটিতে রয়েছে সারি সারি নারিকেল গাছ। বেড়িবাঁধ থেকে উত্তর ও দক্ষিণে দুই দিকে গেলে দেখা যাবে উপকূলের বাসিন্দাদের জীবনযাপনের চিত্র। এই দুই দিকে আরো রয়েছে তাবু খাটিয়ে থাকার নিরাপদ ব্যবস্থা। খোলা জায়গায় সাগরের পাড়ে রাত কাটানো যেন স্বপ্নের মত। সন্দ্বীপ টাউন থেকে পশ্চিম দড়িয়া আসা যাওয়া একটা সিএনজি’র জন্যে গুনতে হবে প্রায় ৫০০টাকা ।
দ্বীপের দক্ষিণে – দ্বীপের দক্ষিণপ্রান্তে অবস্থিত সুবজ চর। এর নাম শুনলেই বুঝা যায় যতদূর চোখ যায় সবুজের সমারোহ। এইখানে শীতকালে ঝাঁকে ঝাঁকে অতিথি পাখি আসে। মহিষের পাল আর অতিথি পাখিদের চরে এক সাথে বিচরণের দৃশ্য মন ভরে যায়। স›দ্বীপ টাউন থেকে রিজার্ভ সিএনজিতে এই চরে যাওয়া যাবে। স›দ্বীপ টাউন থেকে সবুজ চর আসা যাওয়া একটা সিএনজি’র জন্যে গুনতে হবে প্রায় ১১০০টাকা ।
দ্বীপের উত্তরে – দ্বীপের উত্তর দিকে একেবারে শেষপ্রান্তে খুব কাছ থেকে দেখা যাবে সাগরের উত্তাল ঢেউ তরঙ্গ এবং শুনা যাবে গর্জন। স›দ্বীপের দক্ষিণে মাইটভাঙ্গা ইউনিয়নের শিবের হাটে অবস্থিত বিনয় সাহ মিষ্টি ভান্ডার৷ খুবই সু-স্বাদু বিশ্ব বিখ্যাত এই বিনয়সাহ’র মিষ্টির দাম পড়বে প্রতি পিচ ২০টাকা। স›দ্বীপ টাউন থেকে উত্তরপ্রান্তে আসা যাওয়া একটা সিএনজি’র জন্যে গুনতে হবে প্রায় ১১০০টাকা।
ইসলাম সাহেবের খামার বাড়ি – সন্দ্বীপের প্রয়াত সনামধন্য ব্যবসায়ী মো. ইসলাম এর নামকরণে তার খামার বাড়ি। প্রাকৃতিক মনোরম পরিবেশে ঘেরা এই খামার বাড়িতে রয়েছে বড় বড় পুকুর, পুকুরের চারপাশে গাছের সারি। রয়েছে সুপারি গাছ, নারিকেল গাছ, বিভিন্ন ফলের গাছ সহ আরো অনেক কিছু৷ এইখানে গাড়ি ভাড়া স›দ্বীপ টাউন থেকে আসা যাওয়া একটা সিএনজি’র জন্যে গুনতে হবে প্রায় ২০০টাকা।
কিভাবে যাবেন – চট্টগ্রামের সীতাকুন্ডে অবস্থিত কুমিরা ফেরী ঘাটে স্পীড বোট বা ট্রলারে করে স›দ্বীপ যেতে হয়। স্পীড বোট ভাড়া জনপ্রতি – ২৫০টাকা আর ট্রলার ভাড়া- ১২০টাকা করে।
থাকার ব্যবস্থা – গুপ্তছড়া ঘাট থেকে সিএনজি বা মোটরসাইকেলে করে সন্দ্বীপ টাউনে এসে পাওয়া যাবে থাকার হোটেল- গ্রীন ভিউ, হোটেল রয়েল ইন ও জামাল গেস্ট হাউস। হোটেগুলোর সর্বোচ্চ ভাড়া ১৭০০ আর সর্বনি¤œ ২৫০টাকা। এইখানে এসি নন এসি সব ধরনের রুম রয়েছে।
খাওয়ার ব্যবস্থা – হোটেল গ্রীন ভিউ’র নীচ তলায় রয়েছে গ্রীন চিলিজ্ রেস্টুরেন্টে। যা সন্দ্বীপে এক মাত্র উন্নতমানের রেস্টুরেন্ট। ঐতিহ্যবাহী সকল খাবারের জন্যে গ্রীন চিলিজ্ রেষ্টুরেন্টে যোগাযোগ করুন।
বিশেষ দৃষ্টি আকর্ষণ- সাগর পারে তাবু খাটিয়ে রাত্রি যাপন করলে পূর্ণ নিরাপত্তার স্বার্থে সন্দ্বীপ থানা থেকে অনুমতি নিতে হবে।

Comments

comments

Close