শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
জাতীয়, ধর্ম, প্রচ্ছদ, বিভাগীয় সংবাদ, শিক্ষাঙ্গন আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এবারের ৫৫তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব

আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এবারের ৫৫তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব


পোস্ট করেছেন: নিউজ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: জানুয়ারি ১১, ২০২০ , ১০:০৪ অপরাহ্ণ | বিভাগ: জাতীয়,ধর্ম,প্রচ্ছদ,বিভাগীয় সংবাদ,শিক্ষাঙ্গন


মোঃ নজরুল ইসলাম ঃ

ইবাদত-বন্দেগি, জিকির-আসকার ও দেশ-বিদেশের শীর্ষ আলেমগণের বয়ান শুনে টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমায় প্রথম পবের প্রথম দিন অতিবাহিত করেছেন মুসল্লিরা। শনিবার চলছে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পবের দ্বিতীয় দিন। আজ বাদ ফজর ভারতের মাওলানা আব্দুর রহমানের আম বয়ানের মধ্য দিয়ে দ্বিতীয় দিনের কার্যক্রম শুরু হয়েছে। আগামীকাল রোববার আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এবারের ৫৫তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। পরে চারদিন পর আগামী ১৭ -১৯ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে দ্বিতীয়পর্ব। এ পর্বে মাওলানা সাদ অনুসারী মুসল্লিরা অংশ নেবেন। বাংলাদেশে মাওলানা আব্দুল মতিন বায়ান বাংলায় তরজমা করছেন বলে জানিয়েছেন ইজতেমা ময়দানের মুরুব্বী ইঞ্জিনিয়ার মাহফুফুর রহমান।

তিন দিনব্যাপী বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব আগামীকাল আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে। ইজতেমায় অংশ নেয়া মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে তাবলিগের জামাতের শীর্ষ স্থানীয় আলেমগণ কোরআন-হাদিসের আলোকে ঈমান, আমল, আখলাক ও কালেমা সম্পর্কে বয়ান করেন। প্রতিদিন ফজর থেকে এশা পর্যন্ত এ বয়ান অনুষ্ঠিত হয়।
আয়োজক সূত্রে জানা গেছে, শনিবার বাজ যোহর মাওলানা ইসমাইল, বাদ আসর মাওলানা জুহাইরুল হাসান এবং বাদ মাগরিব মাওলানা ইব্রাহিম বয়ান করবেন। এবারের বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বে শুরু হয় শুক্রবার বাদ ফজর মাওলানা ওবায়দুল্লাহ খুরশীদের আম বয়ানের মধ্য দিয়ে। দুপুরে ময়দানে অনুষ্ঠিত হয় স্মরণকালের বৃহৎ জুমার নামাজ। জুমার নামাজে ইজতেমায় অংশ নেয়া মুসল্লিদের পাশাপাশি ঢাকা-গাজীপুরসহ আশপাশের জেলার লাখ লাখ মুসল্লি অংশ নেন। এছাড়া বাদ জুমা শেখ ইউসুফ, বাদ আছর মাওলানা ইহসান, বাদ মাগরিব আহম্মদ লাট বয়ান করেন। মূল বয়ান উর্দুতে হলেও বিশ্ব ইজতেমায় অংশ নেয় বিভিন্ন ভাষাভাষী মুসল্লিদের জন্য তাৎক্ষণিকভাবে ওই বয়ান বাংলা, ইংরেজি, আরবি, তামিল, মালয়, তুর্কি ও ফরাসিসহ বিভিন্ন ভাষায় অনুবাদ করা হয়। ইজতেমার প্রথম পর্বে দেশের ৬৪ জেলার মাওলানা জুবায়ের অনুসারী দেশি বিদেশি মুসল্লিরা অংশ নিচ্ছেন।

এর জন্য ইজতেমা ময়দানকে ৯২টি খিত্ত (ভাগে) ভাগ করা হয়েছিল। কিন্তু মুসল্লি সমাগম বেশি হওয়ায় ইজতেমা শুরুর আগের দিনই ময়দান পূর্ণ হয়ে যায়। পরে মুসল্লিরা নির্ধারিত খিত্তায় স্থান না পেয়ে তুরাগ নদীর পশ্চিমপাড়ে, ময়দান পাশ্ববর্তী কামারপাড়া সড়কে ও ফুটপাতে, ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের ফুটপাতে এবং খোলা জায়গায় অবস্থান নিয়ে ইজতেমায় অংশ নিচ্ছেন। আগত বিদেশি মুসল্লিদের জন্য ইজতেমা ময়দানের উত্তর-পশ্চিমপাশে তৈরি করা হয়েছে বিদেশি নিবাস। দ্বিতীয় দিনও ইজতেমায় যোগ দেয়া দেশ-বিদেশের মুসল্লিদের ময়দানে আসা অব্যহত রয়েছে। ইজতেমা উপলক্ষে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের পদচারণায় টঙ্গীর ইজতেমাস্থল এবং এর আশপাশ এলাকা এখন যেন ধর্মীয় নগরীতে পরিণত হয়েছে।

নিরাপত্তা ব্যবস্থা গাজীপুর মেট্টাপুলিটন পুলিশের কমিশনার মো. আনোয়ার হোসেন জানান, জুমার নামাজ আদায় করতে আশপাশের জেলার অনেক মুল্লিরা এখানে আসেন। জুমার নামাজ উপলক্ষে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। যানজটমুক্তভাবে চলাচলের জন্য পর্যাপ্ত সংখ্যক ট্রাফিক পুলিশ রাখা হয়েছে।
সার্বিক কার্যক্রম মনিটরিং: বিশ^ ইজতেমা ২০২০ এর সার্বিক কার্যক্রম মনিটরিং করার জন্য ৮টি কন্ট্রোল রুম, ১৫টি তোড়ন, পুলিশ বিভাগের জন্য ১৫টি ওয়াচ টাওয়ার, র‌্যাবের জন্য ১০টি স্থাপন করা হয়েছে। নিরাপত্তায় নিয়োজিত বাহিনীর জন্য ৪০০টি অস্থায়ী টয়লেট নির্মাণ করা হয়েছে। ওযু, গোসল, পয়:নিষ্কাশন, সুপেয় পানির জন্য ১৩টি গভীর নলকূপ ৩ কোটি ৫৪ লক্ষ গেলন পানি প্রতিদিন সরবরাহ করার ব্যবস্থা করা হয়েছে। ৬০০ ড্রাম বিলিচিং পাউটার, ২হাজার লিটার কেরসিন, ৬০টি গার্বেস ট্রাক, বর্জ্য অপসারণ করবে। ৬০টি ফগার মেশিন মশক নিধন করবে। নদী ব্রীজের ৩টি নিরাপত্তা বেষ্ট্রনী নির্মাণ করা হয়েছে।
ভ্রাম্যমাণ আদালতের জরিমানা : বিশ্ব ইজতেমা উপলক্ষে নিয়োজিত ভ্রাম্যমান আদালত সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার বিকেল পর্যন্ত ইজতেমাস্থল ও আশে-পাশের খাবারের দোকান ও হোটেলে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালিত হচ্ছে। অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে পচা-বাসী খাদ্য পরিবেশন ও ভেজাল খাদ্য বিক্রয়ের অভিযোগে বিভিন্ন খাবারের দোকান ও হোটেল মালিকদের বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি মামলাসহ জরিমানা আদায় করা হয়।

মোনাজাতে অংশ নেয়া মুসল্লিদের বাড়ি ফেরা নিবিঘ্ন: টঙ্গীর তুরাগ তীরে শুরু হওয়া বিশ্ব ইজতেমা প্রথম পবের আখেরী মোনাজাত আগামীকাল রোববার। ইজতেমায় আগত মুসল্লি মোনাজাতে অংশ নেয়া মুসল্লিদের বাড়ি ফেরা নিবিঘ্ন করতে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ (জিএমপি) গাজীপুরে সড়ক-মহাসড়কে ট্রাফিক ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণে পদক্ষেপ নিয়েছে। জিএমপি কমিশনার মো. আনোয়ার হোসেন জানিয়েছেন, বিশ্ব ইজতেমায় অংশ নেয়া লক্ষ লক্ষ মুসুল্লি ছাড়াও অসংখ্য মুসল্লি আখেরী মোনাজাতে অংশ নিতে ইজতেমাস্থলে আসেন। এর জন্য ট্রাফিক ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। তিনি জানান, শনিবার মধ্যরাত থেকে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের গাজীপুর চৌরাস্তায় ঢাকামুখী, এ ছাড়া ঢাকা বাইপাস সড়কের ভোগড়া, শাখারোড বোর্ডবাজার, মীরেরবাজার থেকে আসা প্রত্যেকটি সড়ক ক্রসিং বন্ধ করে দেয়া হবে। যাতে কোন গাড়ি ইজতেমাস্থলের দিকে ঢুকতে না পারে। তিনি বলেন, ‘আমরা প্রস্তুত রয়েছি। আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি। আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, মুসল্লিদের নিরাপত্তা ও শৃঙ্খলা বজায় রেখে ইজতেমার কাজ সম্পন্ন করতে পারব।’

উল্লেখ্য, শুক্রবার থেকে শুরু হওয়া বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব আগামীকাল রোববার আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে। এরপর চারদিন বিরতি দিয়ে ১৭ জানুয়ারি থেকে ১৯ জানুয়ারি পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে দ্বিতীয় পবের ইজতেমা।

৯ মুসল্লির মৃত্যু : ঃ
টঙ্গীর তুরাগ তীরে শুরু হওয়া বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বে শনিবার সকাল পর্যন্ত ৯ মুসল্লির মৃতু হয়েছে। তাদের সকলেই বার্ধক্যজনিত কারনে মৃত্যু বরন করেছেন। এরা হচ্ছেন- রাতে কুমিল্লার দেবীদ্বার থানার বিংলাবাড়ী গ্রামের তমিজ উদ্দিন (৬৫), ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ থানার তোল্লা গ্রামের শাহজাহান (৬৫), বরিশালের গৌরনদী থানার খালিজপুর গ্রামের আলী আজগর (৭০) ও নারায়ণগঞ্জের বন্দর থানার দক্ষিণ কলাবাগান গ্রামের ইউসুফ মেম্বার (৪৫) । জানিয়েছেন গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ (জিএমপি) এর উপ-পুলিশ কমিশনার মো. মনজুর রহমান। এর আগে শুক্রবার বিকেলে চরঘাট থানার বনকিশোর এলাকার আব্দুর রাজ্জাক (৫০), শুক্রবার সকালে নওগাঁর শহিদুল ইসলাম (৫৫), বৃহস্পতিবার সকালে গোপালগঞ্জের কোটালিপাড়া এলাকার ইয়াকুব শিকদার (৮৫), বৃহস্পতিবার রাতে সিরাজগঞ্জের খোকা মিয়া (৬০) এবং চট্টগ্রামের মোহাম্মদ আলী (৭০) মার যান।

বিশেষ ট্রেন চলাচল : বিশ্ব ইজতেমায় অংশগ্রহণকারী মুসল্লিদের যাতায়াতের সুবিধার্থে বাংলাদেশ রেলওয়ে গতকাল শুক্রবার থেকে আগামীকাল ১২ জানুয়ারি এবং ১৭ থেকে ১৯ জানুয়ারি পর্যন্ত বিভিন্ন গন্তব্যে বিশেষ ট্রেন চলাচলের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। রেলপথ মন্ত্রণালয়ের এক এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয় : জামালপুর-টঙ্গী স্পেশাল ট্রেন জামালপুর ছাড়বে সকাল ৯:১৫ মি. এবং টঙ্গী স্টেশনে পৌছাবে বেলা ২:১৫ মি.।

১০ ও ১৭ জানুয়ারি জুম্মা স্পেশাল ট্রেন ঢাকা ছাড়বে সকাল ১০-২০ মি. টঙ্গী পৌঁছাবে ১১:২০ মি.। টঙ্গী-ঢাকা স্পেশাল ট্রেন টঙ্গী ছাড়বে বেলা ২-৫০ মি., ঢাকা পৌঁছাবে বিকেল ৩-৫০ মি.। আখেরি মুনাজাতের দিন ১২ ও ১৯ জানুয়ারির ঢাকা-টঙ্গী স্পেশাল ট্রেন-১ ঢাকা ছাড়বে ভোর ৫-২৫ মি., টঙ্গী পৌঁছাবে সকাল ৬-১৫ মি.। ঢাকা-টঙ্গী স্পেশাল ট্রেন-২ ঢাকা ছাড়বে সকাল ৭-১৫ মি., টঙ্গী পৌঁছাবে সকাল ৮-১০ মি.। ঢাকা-টঙ্গী স্পেশাল ট্রেন-৩ ঢাকা ছাড়বে সকাল ৭-৩০ মি., টঙ্গী পৌঁছাবে সকাল ৮-৩০ মি.। ঢাকা-টঙ্গী স্পেশাল ট্রেন-৪ ঢাকা ছাড়বে সকাল ৯-৪৫ মি., টঙ্গী পৌঁছাবে সকাল ১০-৪৫ মি.। ঢাকা- টঙ্গী স্পেশাল ট্রেন-৫ ঢাকা ছাড়বে সকাল ১০-২৫ মি., টঙ্গী পৌঁছাবে বেলা ১১-৩০ মি.। টঙ্গী-ঢাকা স্পেশাল-১ টঙ্গী ছাড়বে দুপুর ১২-৪০ মি., ঢাকা পৌঁছাবে বেলা ১-৩৫ মি.। টঙ্গী-ঢাকা স্পেশাল-২ টঙ্গী ছাড়বে দুপুর ১২-৪০ মি., ঢাকা পৌঁছাবে বেলা ১-৩৫ মি.। টঙ্গী-ঢাকা স্পেশাল-৩ টঙ্গী ছাড়বে বেলা ২-১৫ মি., ঢাকা পৌঁছাবে বেলা ৩-১০ মি.। টঙ্গী-ঢাকা স্পেশাল-৪ টঙ্গী ছাড়বে বিকাল ৪-২০ মি., ঢাকা পৌঁছাবে বিকাল ৫-২০ মি.। টঙ্গী-ময়মনসিংহ-১ টঙ্গী ছাড়বে দুপুর ১২-২০ মি., ময়মনসিংহ পৌঁছাবে বেলা ৩-৫৫ মি.। টঙ্গী-ময়মনসিংহ-২ টঙ্গী ছাড়বে দুপুর ১২-৪০ মি., ময়মনসিংহ পৌঁছাবে বিকেল ৪-৫৫ মি.। টঙ্গী-টাঙ্গাইল স্পেশাল টঙ্গী ছাড়বে দুপুর ১২-৫০ মি., টাঙ্গাইল পৌঁছাবে বেলা ২-২০ মি.।

রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরো জানানো হয়, বিশ্ব ইজতেমায় আসা মুসল্লিদের সুবিধার্থে ৮ জানুয়ারি দুপুরের পর থেকে ১২ জানুয়ারি আখেরি মুনাজাতের পূর্ব দিন পর্যন্ত এবং ১৬ জানুয়ারি দুপুরের পর থেকে ১৯ জানুয়ারি আখেরি মুনাজাতের পূর্ব দিন পর্যন্ত ঢাকা অভিমুখী সব ট্রেনের টঙ্গী স্টেশনে ২ মিনিট বিরতি থাকবে। আগামী ১৩ ও ১৯ জানুয়ারি আখেরি মুনাজাতের দিন (সোনার বাংলা ট্রেন ব্যতীত) সব আন্ত:নগর ট্রেন ও মেইল এক্সপ্রেস ট্রেনগুলো টঙ্গী স্টেশনে ২ মিনিট বিরতি থাকবে। আগামী ১২ ও ১৯ জানুয়ারি সুবর্ণ এক্সপ্রেস ও বনলতা এক্সপ্রেস ট্রেন বন্ধ থাকবে। তবে ১৩ ও ২০ জানুয়ারি সোমবার সুবর্ণ এক্সপ্রেস ট্রেন এবং ১২ ও ১৯ জানুয়ারি সিল্কসিটি এক্সপ্রেস ট্রেন সাপ্তাহিক বন্ধের দিনও চলাচল করবে। ১২ ও ১৯ জানুয়ারি আখেরি মুনাজাতের দিন ঢাকা-কালিয়াকৈর ও ঢাকা-নারায়ণগঞ্জের মধ্যে ডেমু (কমিউটার) ট্রেনগুলো চলাচল বন্ধ থাকবে। আখেরি মুনাজাতের পরদিন অর্থাৎ ১৩ ও ২০ জানুয়ারি বহির্গামী টিকিটধারী মুসল্লিদের ফেরত যাওয়া ও টঙ্গী স্টেশন থেকে ট্রেনে ওঠার সুবিধার্থে সুন্দরবন, পারাবত, ধূমকেতু, এগারসিন্দুর প্রভাতী, তিস্তা, নীলসাগর, মোহনগঞ্জ, অগ্নিবীণা, একতা, কিশোরগঞ্জ, জয়ন্তীকা, সিল্কসিটি, উপকূল, কালনী, ব্রহ্মপুত্র, চিত্রা, দ্রুতযান, মহানগর প্রভাতী, রংপুর, যমুনা, সিরাজগঞ্জ, হাওর, উপবন, লালমনি, বেনাপোল, কুড়িগ্রাম ও মহানগর গোধূলি এক্সপ্রেস ট্রেন টঙ্গী স্টেশনে ২ মিনিট করে থামবে বলে রেলপথ মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়েছে।

বিদেশী মুসল্লিদের অংশগ্রহণ:
ইজতেমার প্রথম পর্বে সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব-আমিরাত, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, চাঁদ, ইথিওপিয়া, ফ্রান্স, জার্মানী, ভারত, পাকিস্থান, রাশিয়া, সিঙ্গাপুর, দক্ষিনআফ্রিকা, স্পেন, সুইজারল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া, কাজাখাস্তান, খিরগিস্থান, মালয়েশিয়া, মরক্কো, নেপাল, কেনিয়া, কুয়েত, কাতার, বাহরাইন, জর্দান, দুবাইসহ বিশ্বের ৫০টি দেশের প্রায় ৩ হাজার বিদেশী মুসল্লি ইজতেমায় অংশ নিয়েছেন। বিভিন্ন ভাষা-ভাষী ও মহাদেশ অনুসারে ইজতেমা ময়দানে বিদেশী মেহমানদের ভিন্ন ভিন্ন তাবু নির্মাণ করা হয়েছে। সেখানে তাদের জন্য প্রয়োজনীয় সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

চলমান চিকিৎসা ব্যবস্থা : টঙ্গী শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালে শুক্রবার বিকেল ৪টা পর্যন্ত প্রায় শতাধিক মুসল্লি বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন। এদের মধ্যে বেশিরভাগ মুসল্লি ঠান্ডা, সর্দি-কাশি, শ্বাসকষ্ট, পেটের পীড়াজনিত কারণে চিকিৎসা নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন ওই হাসপাতালের (ভারপ্রাপ্ত) আবাসিক চিকিৎসক ডা. মাসুদ রানা। এছাড়া ইজতেমাস্থলের পার্শ্ববর্তী ফ্রি-মেডিক্যাল ক্যাম্পগুলোতে কয়েক হাজার মুসল্লি বিনামূল্যে ওষুধ সংগ্রহ ও প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। এদের মধ্যে টঙ্গী ওষুধ ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতি ৩শ’, হামর্দদ ল্যাবরেটরিজ প্রায় ২হাজার, ইবনে সিনা ৬শ’ রোগীর চিকিৎসা দিয়েছেন।

হারানো ও প্রাপ্তি :
ইজতেমা মাঠের পশ্চিম দিকে হারানো ও প্রাপ্তি সেন্টার খোলা হয়েছে। ময়দানে কেউ কিছু হারালে ও কিছু পাওয়া গেলে সেখান থেকে সঠিক তথ্য প্রদান করার কথা বলা হয়েছে। উল্লেখ‌্য, আগামী ১০ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বে মাওলানা জুবায়েরের অনুসারী মুসল্লিগণ অংশ নেবেন। ১২ জানুয়ারি আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এ পর্ব। পরে চার দিন বিরতি দিয়ে ১৭ জানুয়ারি থেকে ১৯ জানুয়ারি পর্যন্ত হবে দ্বিতীয় পবের ইজতেমা। এতে মাওলানা সা’দের অনুসারী মুসল্লিগণ অংশ নেবেন।

Comments

comments

Close