বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
অপরাধ, আইন ও বিচার, প্রচ্ছদ, বিশেষ প্রতিবেদন গাঁজাসহ ০২ জন মাদক ব্যবসায়ী হাতে হাতে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১,

গাঁজাসহ ০২ জন মাদক ব্যবসায়ী হাতে হাতে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১,


পোস্ট করেছেন: ক্রাইম রিপোর্টার, মোঃ রমজান আলী রুবেল | প্রকাশিত হয়েছে: মার্চ ৪, ২০২০ , ৮:৪৬ অপরাহ্ণ | বিভাগ: অপরাধ,আইন ও বিচার,প্রচ্ছদ,বিশেষ প্রতিবেদন


রিপোর্টার রমজান আলী রুবেল শ্রীপুর গাজীপুর

গাজীপুর মহানগরীর জরুন এলাকা হইতে ৫০০ গ্রাম গাঁজাসহ ০২ জন মাদক ব্যবসায়ী হাতে হাতে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১, গাজীপুর ক্যাম্প।
গত ০৩ মার্চ রাতে র‌্যাব-১, স্পেশালাইজড কোম্পানী, পোড়াবাড়ী ক্যাম্প, গাজীপুর এর আভিযানিক দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারেন যে, জিএমপি, গাজীপুর কাশিমপুর থানাধীন কাশিমপুর জরুন এলাকায় গাঁজা ক্রয়-বিক্রয় হতেছে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে অত্র কোম্পানীর কোম্পানী কমান্ডার লেঃ কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল-মামুন, (জি), বিএন এর নেতৃত্বে সঙ্গীয় ফোর্সসহ জিএমপি, গাজীপুর কাশিমপুর থানাধীন জরুন পশ্চিমপাড়া সাকিনস্থ বাদশা মিয়ার বাড়ীর উত্তর ভিটির সেমিপাঁকা ঘরের সামনে অভিযান পরিচালনা করেন। অভিযানকালে আসামী আসামী ১। মোঃ হারুন(৪০), পিতা-মোঃ করিম, মাতা-হালিমা বেগম, সাং-তুলারামপুর, থানা-পীরগঞ্জ, জেলা-রংপুর, এ/পি সাং-জরুন পশ্চিমপাড়া (বাদশা মিয়ার বাড়ীর ভাড়াটিয়া), থানা-কাশিমপুর, জিএমপি, গাজীপুর, ২। মোঃ সানোয়ার হোসেন(৩৫), পিতা-মৃত হযরত আলী, মাতা-মৃত মহিরন বেগম, সাং-হরিশা, থানা-গোপালপুর, জেলা-টাঙ্গাইল, এ/পি সাং-সবুজ কানন (বাবু মিয়ার বাড়ীর ভাড়াটিয়া), থানা-কাশিমপুর, জিএমপি, গাজীপুর’দ্বয়কে গ্রেফতার করা হয়। এসময় উপস্থিত সাক্ষীদের সামনে ফোর্সের সহায়তায় আসামীদের দেহ তল্লাশী করে তার দখল হইতে ৫০০ গ্রাম গাঁজা এবং ০২টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়। ধৃত আসামীদেরকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, তারা দীর্ঘদিন যাবৎ চোরাইপথে মাদকদ্রব্য আমদানি করিয়া জিএমপি, গাজীপুর কাশিমপুর এর বিভিন্ন স্থানে বিক্রয় করে আসিতেছিল। আসামীরা অবৈধভাবে মাদকদ্রব্য (গাঁজা) সজ্ঞানে নিজ নিজ হেফাজতে রাখিয়া মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন/২০১৮ এর ৩৬(১) এর টেবিল ১৯(ক) ধারার অপরাধ করেছে।
উক্ত আসামীর বিরুদ্ধে জিএমপি কাশিমপুর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে যার নম্বর-০৫ তারিখ ০৪/০৩/২০২০ ধারা-২০১৮ সনের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন এর ৩৬ এর (১) টেবিল ১৯(ক)।

Comments

comments

Close