রবিবার, ৭ মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
অপরাধ, অর্থ ও শিল্প, জাতীয়, প্রচ্ছদ, বিভাগীয় সংবাদ, সড়ক ও জনপদ, স্বাস্থ্য মানুষের জীবনের চেয়ে গার্মেন্টস মালিকদের ব্যবসাটায় কি বড় ছিলো???কোথায় গেল সামাজিক দূরত্ব!!

মানুষের জীবনের চেয়ে গার্মেন্টস মালিকদের ব্যবসাটায় কি বড় ছিলো???কোথায় গেল সামাজিক দূরত্ব!!


পোস্ট করেছেন: নিউজ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: এপ্রিল ৬, ২০২০ , ২:২৭ পূর্বাহ্ণ | বিভাগ: অপরাধ,অর্থ ও শিল্প,জাতীয়,প্রচ্ছদ,বিভাগীয় সংবাদ,সড়ক ও জনপদ,স্বাস্থ্য


বিশেষ প্রতিবেদক ঃ

করোনা ভাইরাসে সারা বিশ্ব যেখানে আক্রান্ত, এ থেকে বাদ যায়নি আমাদের দেশও। দিন দিন ঝুঁকি বাড়ছে। সেখানে আমাদের দেশের গুটি কয়েক পোশাক কারখানার অতি মুনাফালোভী মালিকরা, তাদের কারখানা খোলা রেখে দরিদ্র মানুষগুলোকে ঠেলে দিলেন মৃত্যুর দিকে।

শুধু তাই নয়, সারা দেশের সকল মানুষকে ফেলে দিলেন করোনা ঝুঁকি ও আতঙ্কের মাঝে। ব্যহত করলেন সরকারের গৃহীত সকল পদক্ষেপ এবং বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখালেন দেশের প্রচলিত আইনকে। সরকার যেখানে সকলকে ঘরে থাকার নির্দেশ দিয়েছেন, সেখানে পোশাক কারখানার শ্রমিকরা সকল বাধা-বিপত্তি অতিক্রম করে চাকুরি বাঁচাতে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রওয়ানা দেন কর্মস্থলে।

মানুষের জীবনের চেয়ে ব্যাবসাটাকে বড় করে দেখলেন দেশের পোশাক কারখানার মালিকরা।‘মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য এ কথাগুলোর কোন মূল্যই দিলেন না গার্মেন্টস মালিকরা’। এরা খেটে খাওয়া দরিদ্র মানুষের জীবন নিয়ে করছে ব্যবসা। ঘাতক ব্যাধি করোনার আঘাতে সারা বিশ্ব যেখানে অস্থির। যার সংক্রামণ ঠেকাতে বিশ্ব মহাচিন্তিত, ঘুম হারাম হয়ে গেছে বিশ্ব নেতা এবং গবেষকদের।

স্থবির হয়ে পড়েছে সমগ্র পৃথিবী। ইউরোপ আমেরিকার মতো উন্নত দেশ প্রাণপন চেষ্টা করে যাচ্ছে এ মহামারি থেকে মানুষকে বাঁচাতে। কিন্ত কিছুতেই ঠেকাতে পারছে না মৃত্যু।দিন দিন মৃত্যুর মিছিল বেড়েই চলছে। তাদের অবস্থা যদি এরকম হয়, তা হলে আমাদের অবস্থা কি হতে পারে? এটাই এখন ভাববার বিষয়। আমদের দেশেও করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। ঠিক সেই মুহূর্তে আমাদের দেশের পোশাক কারখানার মালিকরা চাকুরিচ্যুতির ভয় দেখিয়ে শ্রমিকদের ইচ্ছের বিরুদ্বে জোড় করে কাজে যোগদান করানোর চেষ্টা করেন।

করোনা ভাইরাসের আক্রমন ঠেকাতে আমাদের দেশের সরকার গ্রহণ করেছে নানান পদক্ষেপ। মানুষকে ঘরে রাখার জন্য সারা দেশে চলছে অঘোষিত লকডাউন।বার বার অনুরোধ করা হচ্ছে মানুষকে ঘরে থাকার জন্য। সরকারি পদক্ষেপ বাস্তবায়নের জন্য মাঠে রয়েছে সেনাবাহিনী, সিভিল ও পুলিশ প্রশাসন এবং স্বাস্থ্য বিভাগসহ সরকারের সংশ্লিষ্ট সকল বিভাগ। সারা বিশ্বে দুর্যোগের এ মুহূর্তে দেশের এ ক্লান্তি লগ্নে রাত-দিন চব্বিশ ঘণ্টা অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন সরকারের এসব বিভাগের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।

অথচ গার্মেন্টস মালিকদের একটুও কি মায়া হলো না এই গরিব-দুঃখী খেটে খাওয়া মানুষগুলোর জন্য। আমার প্রশ্ন হল!??
মানুষের জীবনের চেয়ে গার্মেন্টস মালিকদের ব্যবসা টা কি বড় হয়ে গেল??

Comments

comments

Close