মঙ্গলবার, ২ মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
প্রচ্ছদ, প্রশাসন, বিভাগীয় সংবাদ, রংপুর বিভাগ, স্বাস্থ্য বগুড়া শেরপুরে অধিকাংশ সরকারি কর্মকর্তা কর্মস্থলে নেই!

বগুড়া শেরপুরে অধিকাংশ সরকারি কর্মকর্তা কর্মস্থলে নেই!


পোস্ট করেছেন: বার্তা বিভাগ ৪ | প্রকাশিত হয়েছে: এপ্রিল ১৮, ২০২০ , ৫:৪৯ অপরাহ্ণ | বিভাগ: প্রচ্ছদ,প্রশাসন,বিভাগীয় সংবাদ,রংপুর বিভাগ,স্বাস্থ্য


মোঃ নাজমুল হাসান নাজির ঃ

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ঘোষিত ছুটিতে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিজ নিজ কর্মস্থলে অবস্থান করার নির্দেশনা দেয়া হলেও বগুড়ার শেরপুর উপজেলার অধিকাংশ সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী কর্মস্থলে থাকেন না বলে অভিযোগ উঠেছে।

১২ এপ্রিল রবিবার সকাল ১০ টা থেকে দুপুর ১২ টা পর্যন্ত শেরপুর উপজেলা পরিষদ এলাকায় বিভিন্ন অফিসে গিয়ে অনেক সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের তাদের অফিসে পাওয়া যায়নি। অধিকাংশ সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী কর্মস্থলে থাকেন না এমন সত্যতা পাওয়া গেছে।সরেজমিনে দেখা যায় উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার, উপজেলা শিক্ষা অফিসার, সহকারী শিক্ষা অফিসারবৃন্দ, উপজেলা প্রকৌশলী, উপ সহকারী প্রকৌশলীবৃন্দ, সিনিয়র উপজেলা মৎস্য অফিসার, কৃষি সম্প্রসারন অফিসারদ্বয়, উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা, সাবরেজিষ্ট্রার সহ অনেক অফিসের কর্মকর্তারা নিজ নিজ অফিসে নেই।

এমনকি তারা কর্মস্থলেও নেই বলে জানাযায়। শুধুমাত্র উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সহকারী কমিশনার (ভুমি) সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখা এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা সহ সরকারী নির্দেশ পালন করে যাচ্ছেন। শেরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ হুমায়ন কবির ও পুলিশ পরিদর্শক তদন্ত আবুল কালাম আজাদ পুলিশ ফোর্স নিয়ে আইন শৃংখলা রক্ষা সহ সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখতে কাজ করছেন। উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকতাকে নিজ নিজ অফিসে কর্মরত অবস্থায় দেখা গেছে। উপজেলা সমবায় অফিসার ও উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তাকে পিআইওর অফিসে দেখা গেছে।

খাদ্যবান্ধব কর্মসুচি,ওএমএস বা খোলা বাজারে চাল বিক্রি কালে তদারকি কর্মকর্তাদের খুঁজে পাওয়া যায়নি।এ ব্যাপারে উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মজিবর রহমান মজনু’র নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কর্মস্থলেই থাকার কথা কিন্তু অনেকেই নেই। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কার্যক্রম তদারকি করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার । এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: লিয়াকত আলী সেখ এর নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন এ ছুটিতো ছুটি না, সবাইকে কর্মস্থলে থাকতে হবে। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সবাইকে কর্মস্থলে থাকতে বলা হয়েছে। এখন থেকে সবাই কর্মস্থলে থাকবে।

এদিকে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতি মোকাবিলায় মাঠ পর্যায়ে অনুপস্থিত কর্মকর্তাদের তালিকা পাঠানোর নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। জনপ্রশাসন ও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসকদের কাছে এই তালিকা চেয়ে নির্দেশনা পাঠানো হয়েছে। এর আগে বৃহস্পতিবার মাদারীপুরের শিবচরে অনুপস্থিত বিভিন্ন দফতর ও সংস্থার ১১ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশনা দেয় মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে প্রথমে গত ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা করে সরকার। পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় পরে তিন দফায় ছুটি ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানো হয়। এর আগে ২৪ মার্চ মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে ঘোষিত ছুটিতে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অবশ্যই নিজ নিজ কর্মস্থলে অবস্থান করার নির্দেশনা দেয়া হয়।

Comments

comments

Close