মঙ্গলবার, ২ মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
চটগ্রাম বিভাগ, প্রচ্ছদ, বিভাগীয় সংবাদ, স্বাস্থ্য আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্য দিয়ে পদে এসেছি, উত্তরাধিকার সূত্রে পাইনি : ডা. ফয়সল

আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্য দিয়ে পদে এসেছি, উত্তরাধিকার সূত্রে পাইনি : ডা. ফয়সল


পোস্ট করেছেন: বার্তা | প্রকাশিত হয়েছে: জুলাই ২৬, ২০২০ , ১০:২৮ পূর্বাহ্ণ | বিভাগ: চটগ্রাম বিভাগ,প্রচ্ছদ,বিভাগীয় সংবাদ,স্বাস্থ্য


বিএমএ সাধারণ সম্পাদক ডা. মোহাম্মদ ফয়সল ইকবাল চৌধুরীকে ‘হত্যার’ হুমকির প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) চট্টগ্রাম শাখা। হুমকির সাতদিন পরও কেউ গ্রেপ্তার না হওয়ায় মানববন্ধনে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বিএমএ নেতারা। গতকাল শনিবার দুপুরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের প্রধান ফটকের সামনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন বিএমএ চট্টগ্রাম শাখার সভাপতি মুজিবুল হক খান।
মানববন্ধনে শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলকে ইঙ্গিত করে বিএমএ চট্টগ্রাম শাখার সাধারণ সম্পাদক ফয়সল ইকবাল চৌধুরী বলেছেন- বাংলাদেশে করোনার প্রাদুর্ভাব শুরুর পর থেকেই চিকিৎসকদের নিম্নমানের সুরক্ষা সামগ্রী সরবরাহের বিরুদ্ধে ও চট্টগ্রামের আপামর জনসাধারণের চিকিৎসাসেবার অপ্রতুলতা ও অব্যবস্থাপনার বিরুদ্ধে যখন আমি সোচ্চার ছিলাম, তখন সরকারের দায়িত্বশীল পদে থাকা জনৈক ব্যক্তি আমি কিভাবে দলের পদে থেকে অব্যবস্থাপনা ও সুরক্ষা সামগ্রীর অপ্রতুলতার কথা বলি এবং এখনো কিভাবে দলের পদে বহাল আছি সেই প্রশ্ন তোলেন। তিনি আমাকে দল থেকে বহিষ্কারের হুমকি দেন। আমি বলতে চাই, দীর্ঘ আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্য দিয়ে আমি এই পদে এসেছি। উত্তরাধিকার সূত্রে আমি এই পদ পাইনি।
করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবিলায় চট্টগ্রাম সার্কিট হাউজে অনুষ্ঠিত এক সমন্বয় সভায় শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী দলীয় পদে থেকে সরকারের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন। তবে তিনি ওই সভায় ফয়সল ইকবালের নাম উল্লেখ করেননি। মানববন্ধনে ফয়সল ইকবালও উপমন্ত্রী নওফেলের নাম উল্লেখ করেননি। তবে সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, নওফেলকে ইঙ্গিত করেই সেদিনের ক্ষোভের জবাব দিয়েছেন ফয়সল ইকবাল।
ফয়সল ইকবাল চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক এবং সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের অনুসারী।
প্রসঙ্গত, গত ১৮ জুলাই রাতে বিএমএ চট্টগ্রাম শাখার সাধারণ সম্পাদক ডা. মোহাম্মদ ফয়সল ইকবাল চৌধুরী চট্টগ্রাম নগরীর চকবাজার থানায় তাকে হত্যার হুমকি দেওয়ার অভিযোগ এনে জিডি করেন। এতে তিনি উল্লেখ করেছেন, ওইদিন (১৮ জুলাই) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে সাত-আটটি মোটরসাইকেলে করে ২০-২২ জন সন্ত্রাসী নগরীর মেহেদিবাগে তার বাসায় তাকে গালিগালাজ এবং খুনের হুমকি দেন। এর প্রতিবাদে ও সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে মানববন্ধন সমাবেশের আয়োজন করা হয় গতকাল। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ‘বাসার সামনে গিয়ে সন্ত্রাসীদের হুমকি দেওয়ার ঘটনা ওই ভবন এবং আশপাশের ভবনের সিসি ক্যামেরায় স্পষ্ট ধরা পড়েছে। ১৮ জুলাই রাতে থানায় জিডি হয়েছে। অথচ সাতদিন পরও পুলিশ ঘটনায় জড়িত একজনকেও গ্রেপ্তার করতে পারেনি। কিছুদিন ধরে কিছু বিপথাগামী ছাত্র ও বহিরাগত সন্ত্রাসী চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ক্যাম্পাসে শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট করার চেষ্টা করছে। বিএমএ নির্বাচনে পরাজিত একটি মহলের মদদে তারা এই কর্মকাণ্ড করছে। অবিলম্বে সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার করা না হলে ঈদুল আযহার পর বিএমএ কঠোর আন্দোলনে যাবে।’
মানববন্ধনে আরও বক্তব্য রাখেন চমেক শিক্ষক সমিতির সহ-সভাপতি ডা. মনোয়ার উল হক শামীম, চমেক পোস্ট গ্রাজুয়েট ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ডা. সাইফুল ইসলাম, চমেক ছাত্র সংসদের ভিপি ডা. এম এ আওয়াল রাফি, চমেক ছাত্রলীগের সভাপতি ডা. হাবিবুর রহমান প্রমুখ।

Comments

comments

Close