রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
অপরাধ, আইন ও বিচার, আজকের পত্রিকা, গনমাধ্যম, প্রচ্ছদ মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে নিয়ে কটুক্তি কারী সালমান গ্রেফতার

মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে নিয়ে কটুক্তি কারী সালমান গ্রেফতার


পোস্ট করেছেন: নিউজ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: আগস্ট ৯, ২০২০ , ২:১০ পূর্বাহ্ণ | বিভাগ: অপরাধ,আইন ও বিচার,আজকের পত্রিকা,গনমাধ্যম,প্রচ্ছদ


মোঃ আরীফ মৃধা ঃ

গাজীপুর মহানগরের ৩৫ নম্বর ওয়ার্ডের কামারজুরী এলাকায় মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে নিয়ে নানা ধরনের কটূক্তি করেছেন এক ব্যক্তি। সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, ইসলাম কটূক্তিকারী ওই ব্যক্তির নাম শেখ সালমান।

সে মহানগরের পলাগাছ এলাকার বাসিন্দা কামাল উদ্দিন এর মেয়ের জামাই। পলাগাছ এলাকার কামাল উদ্দিনের মেয়েকে বিয়ে করার সুবাদে দীর্ঘদিন যাবত মহানগরের উত্তর খাইলকুরের পলা গাছ এলাকায় পরিবার নিয়ে বসবাস করে আসছেন। শ্বশুর বাড়িতে জায়গা পেয়ে ওই এলাকায় সে ঘর বাড়ি করে বসবাস করছেন এবং মহানগরের ৩৫ নম্বর ওয়ার্ডের বাদে কলমেশ্বরের সাইনবোর্ড কামারজুরী সড়কের পাশে কবুতর বিক্রি এবং পশু-পাখির খাদ্য বিক্রেতা হিসেবে একটি দোকান করে আসছিলেন।

শনিবার তার দোকানে কবুতর কিনতে গেলে রনিসহ তিনজনের সামনে হঠাৎ করেই বলে ওঠেন দাড়িওয়ালা লোক গুলো আমি দেখতে পারিনা। দাড়িওয়ালা লোক ভন্ড ধরনের হয়। দাড়ি টুপি মাথায় দিয়ে কি হবে? ইসলামের নবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহিওয়া সাল্লাম নিজের ভোগবিলাসের জন্য ১৩ টি বিয়ে করেছেন এবং নাউজুবিল্লাহ চোদনখেয়ে তিনি মক্কা থেকে মদিনায় চলে গিয়েছিলেন। এজন্য আরো অনেক খারাপ উক্তি ইসলাম ও মহানবী (সাঃ) কে নিয়ে সে করতে থাকলে সেখানে যারা কাস্টমাররা ছিলেন তারা তাকে বাধা দেন এবং তার প্রতিবাদ করেন।

তাদের প্রতিবাদের উত্তরে বলেন, তোমরা থামো। আমি ইসলাম সম্পর্কে অনেক কিছু জানি। কোরআন মিথ্যা হতে পারে, আমি মিথ্যা নই। কোরআনের ভুল থাকতে পারে, আমার মাঝে কোন ভুল নেই। এরকম কাফেরের মতো একের পর এক আচরণ করতে থাকে।
এই ঘটনাটি দ্রুত এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে হাজার হাজার মানুষ তৎক্ষণাৎ সেখানে জড়ো হয় এবং তার এরকম কটূক্তির প্রতিবাদ প্রতিবাদ করে। এক পর্যায়ে উত্তেজিত জনতা মিছিল সহকারে ৩৫ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল্লাহ আল মামুন মন্ডলের অফিসে যান এবং কাউন্সিলর এর নিকট এই ঘটনার প্রতিবাদ জানান এবং কাউন্সিলর তাদেরকে ন্যায় বিচারের আশ্বাস দেন। কাউন্সিলর উত্তেজিত জনতাকে থামিয়ে গাছা থানায় ফোন দেন।

খবর পেয়ে জিএমপির গাছা থানার ওসি অপারেশন মালেক খসরুর নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে উত্তেজিত জনতাকে ন্যায় বিচারের আশ্বাস দেন এবং ইসলাম ও নবীজিকে কটূক্তিকারী সালমানকে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে যান।

পরে উত্তেজিত জনতার মধ্য থেকে একজন বাদী হয়ে গাছা থানায় একটি মামলা রুজু করেন। বিষয়টি নিয়ে গাছা থানার অফিসার ইনচার্জ ইসমাইল হোসেন জানান, ইসলাম মুসলমানদের ধর্ম।যে কোন ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দানকারী সে যেই হোক আমরা অবশ্যই তাকে আইনের আওতায় এনে বিচারের সম্মুখীন করব। যেকোনো ধরনের ধর্মীয় উস্কানিকে আমরা অবশ্যই নিরুৎসাহিত করি। বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। ঘটনাটি নিয়ে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সৃষ্টি হতে পারে।

তাই ইসলাম ও নবীজি কে নিয়ে কটূক্তিকারীর এবং উস্কানিদাতা এবং তাদের সহযোগী সহ সবাইকে আমরা আইনের আওতায় নিয়ে আসব। গাছা থানার ওসি অপারেশন মালেক খসরু জানান, বিষয়টি নিয়ে ইতিমধ্যেই মামলা হয়েছে। আমরা সঠিক তদন্তের মাধ্যমে এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার যাতে হয় তার জন্য অবশ্যই মহান আদালতে রিপোর্ট পেশ করব।

ইসলাম বিরোধী, ইসলাম কটূক্তিকারী ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে অবশ্যই উপযুক্ত রিপোর্ট দাখিল করব এবং ভবিষ্যতে কেউ এ ধরনের দুঃসাহস দেখালে অবশ্যই তার বিরুদ্ধে আইনের সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নিব। সালমান এর বাড়ি মানিকগঞ্জের শিবালয়ে।

গাজীপুর মহানগরের উত্তর খাইলকুর পলাগাছ এলাকায় বিয়ে করার সুবাদে দীর্ঘ প্রায় ২৫ বছর যাবত ওই এলাকায় বসবাস করে আসছেন এবং সাইনবোর্ড এলাকায় দোকান করে আসছিলেন। এলাকার আলেম সমাজ ও সুধীজন সহ সর্বস্তরের মানুষ এই ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন এবং অপরাধীর সর্বোচ্চ সাজা দাবি করেছেন।

এমন সাজা দিতে হবে যাতে করে ভবিষ্যতে আর কেউ ইসলাম ও আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) কে নিয়ে কটুক্তি করার সাহস না পায়।

Comments

comments

Close